প্রচ্ছদ >> সারাদেশ

স্বরাষ্ট্রসচিবের প্রতি তদন্ত কমিশনের প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ হাইকোর্টের

২০০১ সালে অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর দেশের বিভিন্ন স্থানে সংখ্যালঘু ও বিরোধী দলের নেতা-কর্মীদের ওপর নির্যাতনের ঘটনা তদন্তে গঠিত বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিশনের প্রতিবেদন আগামী ২ ফেব্রুয়ারির মধ্যে আদালতে দাখিল করতে স্বরাষ্ট্রসচিবের প্রতি  নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

গতকাল বুধবার বিচারপতি কাজী রেজাউল হক ও বিচারপতি এ বি এম আলতাফ হোসেন সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এক আবেদনের শুনানি নিয়ে রুল জারির পাশাপাশি এ আদেশ দেন।

রুলে ওই প্রতিবেদন জনসমক্ষে প্রকাশের কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, তা জানতে চাওয়া হয়। স্বরাষ্ট্রসচিবকে দুই সপ্তাহের মধ্যে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

২০০১ সালের অক্টোবর নির্বাচনের পর দেশের বিভিন্ন স্থানে সংখ্যালঘু বিশেষ করে হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর নির্যাতন হয়। ওই নির্বাচনের মধ্য দিয়ে বিএনপি-জামায়াত জোট ক্ষমতায় আসে। নির্যাতনের ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিদের চিহ্নিত করে শাস্তি নিশ্চিত করার জন্য আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর ২০০৯ সালে মানবাধিকার সংগঠন হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের পক্ষে ছয়জন আইনজীবী রিট করেন।

 ওই রিটের সূত্র ধরে মানবাধিকার সংগঠনটির পক্ষে একটি আবেদন আদালতে উপস্থাপন করা হয়। গতকাল আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মনজিল মোরসেদ। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিশ্বজিত রায়।

এদিকে হাইকোর্টের নির্দেশনা অনুসারে ২০০৯ সালের ২৭ ডিসেম্বর সাবেক জেলা জজ মো. শাহাবুদ্দিনের নেতৃত্বে তিন সদস্যের বিচার বিভাগীয় কমিশন গঠন করা হয়। প্রায় এক বছর তিন মাস তদন্ত শেষে কমিশন ২০১১ সালের এপ্রিলে সুপারিশসহ তদন্ত প্রতিবেদন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে জমা দেয়।

আদেশের বিষয়টি জানিয়ে আইনজীবী মনজিল মোরসেদ প্রথম আলোকে বলেন, ২০০১ সালে নির্বাচন-পরবর্তীকালে যে নির্যাতন ও সহিংসতা হয়েছিল, সে বিষয়ে গঠিত তদন্ত কমিশনের প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়নি। প্রতিবেদনটি প্রকাশিত হলেও জড়িত ব্যক্তিদের বিচারের আওতায় এনে শাস্তি নিশ্চিত হলে হয়তো ২০১৪ সালে নির্বাচনের পর নির্যাতন ও সহিংস ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটত না।

এই বিভাগের সর্বশেষ আপডেট