প্রচ্ছদ >> সাহিত্য ও সংস্কৃতি

গুচ্ছ কবিতা : কামরুন্নাহার রুনু

দায়বদ্ধতা

কথা দিচ্ছি… শূন্যতার কাছে চেয়ে নেব এক টুকরো উষ্ণতা
জলের কাছে পিপাসার ঠিকানা,
উত্থাল সমুদ্রের কাছে খুঁজে নেব এক টুকরো নীল।
কথা দিচ্ছি… মৃত্তিকার শূন্য পেয়ালায়
পুতে দেব লক্ষ লক্ষ জীবাণুমুক্ত বোধ।
হেমন্তের হিম বাতাসে, ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র জোনাকির উজ্জ্বলতায়
জীবন তুলীতে আঁকব বিশ্বাসের বারতা।
কথা দিচ্ছি… যেখানে মরন ব্যাধি, সেখানে থেকেই হবে জীবনের সূচনা।
জরায়ুর ডিম্বাশয়ে জন্মেছিল যে বীজ, কঙ্কালসার আহত দুর্বল,
এবার সদ্য প্রসূত হবে, জরাজীর্ণ সচেতন আত্মার।


স্বপ্ন এবং আকুতি


কিছু কিছু ব্যর্থতা আড়ষ্ট সাপের মত
কুন্ডুলী পাকায় অবিরত।
তখন অশান্ত হাওয়ায় বনরাজি চঞ্চল
যেন শুরুতেই পুনরায় ঘূর্ণায়মান স্বপ্ন।
শাখা-প্রশাখায় পাতাঝরা কান্ড
পাতা আর পল্লবে ছাওয়া প্রকৃতি
রুগ্ন চোখে নতুন করে সাজায় স্বপ্ন
নিভে যাওয়া আলো জ্বলে ধোঁয়ার মত
যেন দেহ হতে শ্বাসটুকু ছিড়ে যাওয়ার মত।
সমুদ্র পাড়ে আকাশে অনবরত
গাঙচিলের আসা যাওয়া
যেন মুক্ত হাতে নিরস্র করে দেয়া
মনের প্রতিটা দেহ।
জ্বলন্ত সিগারেট ধপ করে নিভে যায়
বরফের নদী যেন ধীরে ধীরে বয়।


অস্পর্শ অন্তরাল


কতদিন বিলাপ করিনি, ভাসাইনি তরী
নীলাভ চোখের জলে।
কাটাবিদ্ধ হয়নি অনুরাগ ভরা এমন বিকেলে
পাতাঝরা শরতে।
আজ অনুভুতির কার্নিশে দাঁড়িয়ে ফুফিয়ে ফুফিয়ে
কাদছিল দুটি মন।
কাঁপছিল যেমন শীতের ভোরে বৃষ্টিতে ভেজা চড়ুই।
নীড়হারা বাবুই আর শেকড়বীহিন গাছ।
বোধের ভেতরে সংগম
অস্তিত্ত হীন গুল্মলতার মত।
সেদিন কন্ঠ ছিরে রক্ত ঝরছিল তবুও
নিঃশব্দ ছিল বোবা মন।
ভেতরের অবয়ব শুধু বলছিল,
আর একবার ফসল ফলাও ওই জমিনে
আর একবার তরী ভাসাও এই নরম কোমল জলে
আর একবার, আমার বেনামী সময় কে প্রস্ফুটিত কর,
নতুন সূর্যের আলোয়।

2014-01-26-10-43-18 ঢাকাঃ 'বাঙালির ঐতিহ্য পিঠা-পার্বণ'_ এ স্লোগানকে সামনে রেখে শিল্পকলা একাডেমি চত্বরে শুরু হয়েছে জাতীয় পিঠা উৎসব ২০১৪। একাডেমির কফি হাউসের সার্বিক তত্ত্বাবধানে সপ্তমবারের মতো এ উৎসবের আয়োজন করে পিঠা উৎসব আয়োজক কমিটি।উৎসবের উদ্বোধন করে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু । পিঠার স্টলগুলো ঘুরে দেখা গেছে, পিঠা বিক্রেতারা হরেক রকম বাহারি স্বাদের পিঠার...
     
 
এই বিভাগের সর্বশেষ আপডেট